সব
facebook raytahost.com
পার্বত্য মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী হচ্ছেন কে! | Protidiner Khagrachari

পার্বত্য মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী হচ্ছেন কে!

পার্বত্য মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী হচ্ছেন কে!

স্টাফ রিপাের্টার:: নানা জল্পনা-কল্পনার অবসান হলো দ্বাদশ জাতীয় সংসদ নির্বাচনের মধ্য দিয়ে। এরই মধ্যে নির্বাচিতদের শপথ গ্রহনও শেষ হলো এখন আলোচনার কেন্দ্র বিন্দুতে পরিণত হয়েছে কারা ঠাঁই পাচ্ছেন মন্ত্রী পরিষদে।কেইবা হচ্ছে পার্বত্য মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী!

এ নিয়ে আলোচনায় সরগরম পার্বত্য জেলা। কার ভাগ্যে আছে পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়ের মন্ত্রী। বীর বাহাদুর, দীপংকর তালুকদার নাকি কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা। আওয়ামীলীগের সভানেত্রী প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুরাতনে আস্থা রাখবেন নাকি নতুন মুখে নতুন রূপে সাজাবেন মন্ত্রনালয়? এ নিয়ে স্থানীয়দের আশা-প্রত্যাশার শেষ নেই। নতুন মুখ আসুক পার্বত্য মন্ত্রনালয়ে এমনটাই দাবী পাহাড়ের মানুষের।

সদ্য শেষ হওয়া নির্বাচনে বান্দরবান আসন থেকে ৭ম বারের মত বীর বাহাদুর উশৈসিং, রাঙ্গামাটি আসন থেকে ৫ম বারের মত দীপংকর তালুকদার এবং খাগড়াছড়ি আসন থেকে ৩য় বারের মত সংসদ সদস্য নির্বাচিত হয়েছেন কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরা।

মন্ত্রীত্ব ধরে রাখতে মরিয়া বীর বাহাদুরের সাথে পাহাড়ে অভিজ্ঞতায় দীপংকর তালুকদার এবং জাতীয় ও আঞ্চলিক রাজনীতিসহ নানামুখী চাপ সামলে চলা কুজেন্দ্র লাল ত্রিপুরাও দীর্ঘদিন ধরে যে যার মত করে লবিং চালিয়ে যাচ্ছেন।

পার্বত্য চুক্তির আলোকে ১৯৯৮ সালের ১৫ জুলাই গঠিত হয় পার্বত্য চট্টগ্রাম বিষয়ক মন্ত্রনালয়। প্রতিষ্ঠাকালীন পূর্ণ মন্ত্রীর দ্বায়িত্ব পালন করেন তৎকালীন খাগড়াছড়ির সংসদ সদস্য প্রয়াত কল্প রঞ্জন চাকমা। পরবর্তীতে ২০০১ সাল থেকে ২০০৬ সাল পর্যন্ত বিএনপির সরকারের আমলে রাঙ্গামাটির সংসদ সদস্য মনি স্বপন দেওয়ান উপ মন্ত্রী হিসেবে মন্ত্রনালয়ের দ্বায়িত্ব পালন করেন।

২০০৯ সাল থেকে ২০১৪ সাল পর্যন্ত রাঙ্গামাটির সংসদ সদস্য দীপংকর তালুকদার প্রতিমন্ত্রী হিসেবে দ্বায়িত্বে ছিলেন। এরপর ২০১৪ সাল থেকে টানা মন্ত্রনালয়ের দ্বায়িত্বে রয়েছেন বান্দরবানের সংসদ সদস্য বীর বাহাদুর উশেসিং। শুরুতে প্রতিমন্ত্রী হলেও পরবর্তীতে ২০১৮ সালে পূর্ণ মন্ত্রী হয়ে টানা ৯ বছর ধরে মন্ত্রনালয়ের দ্বায়িত্বে রয়েছে।

পার্বত্য তিন জেলা নিয়ে একজন পূর্ণ মন্ত্রী থাকলেও বিগত সময়ে খাগড়াছড়ি ও রাঙ্গামাটির বাসিন্দারা বীর বাহাদুর উশৈসিং’র দেখা পেয়েছেন হাতেগোনা। তাঁর বিরুদ্ধে স্থানীয়রা তিন জেলায় উন্নয়ন বৈষম্যের অভিযোগও করেন।

সুশাসনের জন্য নাগরিক(সুজন)’র খাগড়াছড়ি জেলা শাখার সভাপতি এডভোকেট নাছির উদ্দিন আহম্মেদ বলেন, দীর্ঘ বছর ধরে একই মন্ত্রী থাকাতে উন্নয়ন কর্মকান্ড এক জেলা কেন্দ্রীক হয়ে গেছে। অপরাপর দুই জেলাকেও বিবেচনা করা উচিৎ। তাছাড়া তিন জেলার মধ্যে ঐতিহাসিকভাবে খাগড়াছড়ির গুরুত্ব বেশি। সশস্ত্র সংঘাত থেকে অস্ত্র সমার্পন, শরনার্থী টাস্কফোর্স, আভ্যন্তরিণ উদ্বাস্তু, ভূমি কমিশন সংক্রান্ত কার্যক্রমসহ অনেক গুরুত্বপূর্ন বিষয়াদি খাগড়াছড়িতে। তাই নীতি নির্ধারক মহল বিষয়টি ভাববেন বলে আমার বিশ্বাস।

দৈনিক পার্বত্য চট্টগ্রাম’র সম্পাদক ফজলে এলাহী বলেন, দীর্ঘ বছর ধরে রাঙ্গামাটি ও খাগড়াছড়ি মন্ত্রীত্ব বঞ্চিত। পরপর দুইবার বান্দরবানের সংসদ সদস্য মন্ত্রনালয়ের দ্বায়িত্ব পালন করেছেন। এবার পাহাড়ের উন্নয়ন বৈষম্য দূর করতে হলে রাঙ্গামাটি কিংবা খাগড়াছড়ি থেকে একজনকে মন্ত্রীত্ব দেয়া উচিৎ। সে দিক থেকে নানান ঘটনা প্রবাহে গুরুত্বপূর্ন খাগড়াছড়ি। দুই যুগ ধরে বঞ্চিত খাগড়াছড়ি আসন থেকে মন্ত্রীত্ব দেয়া যেতে পারে। আর না হয় রাঙ্গামাটি। এখন দেখার বিষয় প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা পুরাতনে আস্থা রাখছেন নাকি নতুন মুখ’কে ঠাঁই দেবেন মন্ত্রনালয়ে।

আপনার মতামত লিখুন :

পাহাড়ে পর্যটকের ভীড়

পাহাড়ে পর্যটকের ভীড়

ফুল বিজুর মধ্য দিয়ে বর্ণিল সাজে পাহাড়

ফুল বিজুর মধ্য দিয়ে বর্ণিল সাজে পাহাড়

বৈসাবি’র আনন্দে মেতেছে পাহাড়”

বৈসাবি’র আনন্দে মেতেছে পাহাড়”

বৈসাবী মেলায় মিলবে পাহাড়ের প্রতিচ্ছবী

বৈসাবী মেলায় মিলবে পাহাড়ের প্রতিচ্ছবী

পাঁকার চেয়ে কাঁচা কাঁঠালের চাহিদা বেশি

পাঁকার চেয়ে কাঁচা কাঁঠালের চাহিদা বেশি

কাজ না করেই কোটি টাকা উত্তোলন

কাজ না করেই কোটি টাকা উত্তোলন

মোবাইল অ্যাপস ডাউনলোড করুন  
সম্পাদক ও প্রকাশক : সৈকত হাসান
বার্তা সম্পাদক : মো: আল মামুন সিদ্দিক
বার্তা ও বাণিজ্যিক কার্যালয় : খাগড়াছড়ি পার্বত্য জেলা।
ফোনঃ ০১৮৩৮৪৯৯৯৯৯
ই-মেইল : protidinerkhagrachari@gmail.com
© ২০২৩ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত। Design & Developed By: Raytahost .com